ঢাকাসোমবার , ২০ ডিসেম্বর ২০২১
  1. International
  2. অন্যান্য
  3. অর্থনীতি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. উৎসব
  6. খেলাধুলা
  7. চাকুরী
  8. জাতীয়
  9. দেশজুড়ে
  10. ধর্ম
  11. পরামর্শ
  12. প্রবাস
  13. ফরিদপুর
  14. বিনোদন
  15. বিয়ানীবাজার

কোনো ভেদাভেদ চাই না নৌকাকে জেতাতে হবে

নিজস্ব প্রতিনিধি,দৈনিক ডাকবাংলা ডট কম
ডিসেম্বর ২০, ২০২১ ১০:৪১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে নিজেদের দ্বন্দ্ব ভুলে নৌকাকে বিজয়ী করতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি গতকাল সোমবার বিকেলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নারায়ণগঞ্জের নেতাদের বৈঠকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ আহ্বান জানান। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন পরিচালনায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় টিমের সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর কবির নানক সভায় সভাপতিত্ব করেন।
নাসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভী সভায় বক্তব্য দেন। আইভীর বিরোধী হিসেবে পরিচিত নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান সভায় উপস্থিত ছিলেন না। তবে শামীম ওসমানের ঘনিষ্ঠ নেতা নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি চন্দন শীল সভায় বক্তব্য দেন।

সভা চলাকালে ভিডিও কলের মাধ্যমে সংযুক্ত হন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘নেতাকর্মীদের একসঙ্গে কাজ করতে হবে। এখানে কোনো ভেদাভেদ চাই না। নৌকাকে জেতাতে হবে। একটাই কথা, নৌকাকে জেতাতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কারো পছন্দ-অপছন্দ থাকতে পারে। কিন্তু একজনই তো নমিনেশন পাবেন। কাজেই আমরা একজনকে দিয়েছি। এখন সবাইকে নৌকার পক্ষে কাজ করতে হবে। নৌকাকে জেতাতে হবে। নির্বাচনের জন্য একটি কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। এখন প্রত্যেককে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে, যেন আমরা এগিয়ে যেতে পারি।’
শেখ হাসিনার বক্তব্যের পর দলীয় নেতাকর্মীরা দাঁড়িয়ে তাঁকে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় শেখ হাসিনা ভিডিও কলে নেতাকর্মীদের দেখতে চান। শেখ হাসিনার পাশে উপস্থিত থাকা তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানাও নেতাকর্মীদের শুভেচ্ছা জানান। শেখ রেহানা সবাইকে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দেন।

দলীয় একাধিক সূত্র জানায়, সভায় শামীম ওসমান উপস্থিত না থাকলেও আগামী ২৪ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জে একটি নির্বাচনী সভায় তাঁর উপস্থিত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। ২০১১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শামীম ওসমানকে হারিয়ে আইভী মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তাঁদের দুজনের মধ্যে দূরত্ব বেড়ে যায়।

দলীয় সূত্র জানায়, সভার শুরুতে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাঁদের মতামত তুলে ধরেন। নারায়ণগঞ্জের নেতারা নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নামানোর উদ্যোগ নিতে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে অনুরোধ জানান।
নারায়ণগঞ্জের একাধিক নেতা বলেন, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের দুর্গ, কিন্তু আমাদের নিজেদের মধ্যে বিভেদ থাকার কারণে বিএনপি-জামায়াত সুযোগ নেয়। আইভীকে বিজয়ী করতে শামীম ওসমানের সমর্থন প্রয়োজন।

এ সময় ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, আপনারা কেন নৌকার বিজয় নিয়ে সংশয় জানাচ্ছেন? আপনারা ঐক্যবদ্ধ থাকলে কেউ নৌকাকে হারাতে পারবে না।

সভার সূত্র জানায়, সভায় নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে আহ্বায়ক ও সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহাকে সদস্যসচিব করে আইভীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। ২৭টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ২৭ জন নেতাকে নির্বাচন সমন্বয়ের দায়িত্ব দেওয়ার বিষয়ে সভায় আলোচনা হয়। ২৪ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ শেখ রাসেল মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কর্মিসভার সিদ্ধান্ত হয়। এ সভায় কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেবেন।

সভা শেষে জাহাঙ্গীর কবির নানক সাংবাদিকদের বলেন, ‘দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা আমাদের প্রার্থীকে আবার দোয়া করে দিয়েছেন। একই সঙ্গে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে বিজয় সুনিশ্চিত করতে নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছেন।’

অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে নির্বাচনে কোনো প্রভাব পড়বে কি না—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সেলিনা হায়াত আইভী বলেন, ‘নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকতে পারে, কিন্তু আমাদের মধ্যে ওই রকম কোনো বিভেদ নেই। আমরা নির্বাচনে একসঙ্গে কাজ করেছি—এটা অতীতেও দেখা গেছে, এবারও দেখা যাবে। মহানগর আওয়ামী লীগ, জেলা আওয়ামী লীগ—সবাই মিলেই আমরা আমাদের নৌকার জন্য কাজ করব।’

সংসদ সদস্য শামীম ওসমান আপনার জন্য কাজ করবেন কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে আইভী বলেন, ‘অবশ্যই, উনি (শামীম ওসমান) তো নৌকার লোক। উনি নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করতে পারেন না। উনি আমাদের দলের লোক, নৌকার লোক, জননেত্রী শেখ হাসিনার কর্মী। উনি অবশ্যই নৌকার জন্য কাজ করবেন।’

মির্জা আজম সভাটি সঞ্চালনা করেন। বক্তব্য দেন দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল হক, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম প্রমুখ।